Monday , December 5 2016
Home / খেলাধুলা / এখন মাশরাফিরা জিতলেই বাড়তে থাকবে কুমিল্লা-সমর্থকদের আফসোস। আরও আগে এভাবে জ্বলে উঠলে প্লে-অফ খেলার স্বপ্নটা নিশ্চয়ই তাঁদের বেঁচে থাকত!.

এখন মাশরাফিরা জিতলেই বাড়তে থাকবে কুমিল্লা-সমর্থকদের আফসোস। আরও আগে এভাবে জ্বলে উঠলে প্লে-অফ খেলার স্বপ্নটা নিশ্চয়ই তাঁদের বেঁচে থাকত!.

এই একটা শব্দযুগল দেখার জন্য মাশরাফি আর কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানসের ভক্ত-সমর্থকেরা চাতক চোখে চেয়ে ছিল—‘টানা জয়’! সেটাই পেল কুমিল্লা। নিজেদের ষষ্ঠ ম্যাচে এসে প্রথম জয়ের দেখা পাওয়া মাশরাফির দল টানা জয় পেল নবম আর দশম ম্যাচে। রাজশাহী কিংসের বিপক্ষে পাওয়া প্রথম জয়, সেটিকে মনে করিয়ে দিয়ে আবারও সেই রাজশাহীকে ৮ উইকেটে হারাল কুমিল্লা।
১২৫ রান তাড়া করতে নেমে কুমিল্লার শুরু অবশ্য খুব একটা ভালো হয়নি। ১৬ রানে ইমরুল কায়েস আউট হলেও আহমেদ শেহজাদ-মারলন স্যামুয়েলস স্বচ্ছন্দেই এগিয়েছেন। দুজনের দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে আসে ৬৯ বলে ৯০ রান। এই জুটিতেই আসলে খেলা শেষ।
ফরহাদ রেজার বলে জেমস ফ্র্যাঙ্কলিনের ক্যাচ হয়ে শেহজাদ আউট হয়েছেন হাফ সেঞ্চুরি থেকে চার রান দূরে থেকে। তবে বিপিএলে নিজের দ্বিতীয় ফিফটি পেয়েছেন স্যামুয়েলস। ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যান সবচেয়ে বেশি চড়াও হয়েছে মেহেদী হাসান মিরাজের বলে। মিরাজের এক ওভারেই মেরেছেন পর পর তিন ছক্কা।
বিপিএল ঢাকায় ফেরার পর সন্ধ্যার প্রতিটি ম্যাচ হয়েছে লো-স্কোরিং। কাল পর্যন্ত ৬ ম্যাচে মোট রান হয়েছে ১৫১২। ইনিংস গড়ে রান ১২৬। কালও একই ছবি। যদিও রাজশাহীর ভালো শুরু এনে দেন দুই ওপেনার মুমিনুল হক ও নুরুল হাসান। ৩৮ রানে ওপেনিং জুটি ভাঙার পর ২১ রানের মধ্যে তারা হারিয়েছে ৬ উইকেট। ১১তম ওভারে কুমিল্লা পেসার সাইফউদ্দিন পেয়েছিলেন হ্যাটট্রিকের সুযোগ। রাজশাহীকে উদ্ধার করেছে জেমস ফ্র্যাঙ্কলিন-আবুল হাসানের অষ্টম উইকেট জুটি। নির্দিষ্ট করে কিউই অলরাউন্ডারে সওয়ার হয়ে তারা পেয়েছে লড়াইয়ের পুঁজি।
চট্টগ্রাম পর্বের শুরু থেকেই দলের সঙ্গে আছেন ফ্র্যাঙ্কলিন। কাল প্রথম ম্যাচ খেলার সুযোগ পেয়েই নিজেকে চিনিয়েছেন এই কিউই। ৩১ বলে করেছেন ৪৪ রান। দুই চারের সঙ্গে ছক্কা মেরেছেন তিনটি। শাহাদাত হোসেনের করা শেষ ওভারেই তুলেছেন ২৩ রান। আবুল হাসানের সঙ্গে অষ্টম উইকেটে যোগ করেছেন ২৯ বলে ৪৬ রান। ফ্র্যাঙ্কলিনের রানটা অবশ্য রাজশাহীর কাজে আসেনি শেষ পর্যন্ত।
এখন মাশরাফিরা জিতলেই বাড়তে থাকবে কুমিল্লা-সমর্থকদের আফসোস। আরও আগে এভাবে জ্বলে উঠলে প্লে-অফ খেলার স্বপ্নটা নিশ্চয়ই তাঁদের বেঁচে থাকত!
সংক্ষিপ্ত স্কোর:
রাজশাহী: ২০ ওভারে ১২৪/৭ (মুমিনুল ২০, নুরুল ১৭, সাব্বির ৮, প্যাটেল ৪, মিরাজ ৭, ফ্র্যাঙ্কলিন ৪৪*, স্যামি ০, রেজা ১৩, হাসান ৪*; মাশরাফি ২/২৪, শাহাদাত ০/৪১, নাবিল ১/১৪, রশিদ ১/১৬, সাইফউদ্দিন ৩/১২, নাজমুল ০/১১)।
কুমিল্লা: ১৮.৪ ওভারে ১২৫/২ (ইমরুল ৯, শেহজাদ ৪৬, স্যামুয়েলস ৫৫*, লতিফ ৭*; সামি ০/১৯, মিরাজ ১/২৭, নাজমুল ০/৩১, প্যাটেল ০/১৪, হাসান ০/৯, রেজা ১/১৪, ফ্র্যাঙ্কলিন ০/৭)।
ফল: কুমিল্লা ৮ উইকেটে জয়ী।
ম্যান অব দ্য ম্যাচ: মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন।

About Monira Islam

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *